o গুজরাট ও হিমাচলে ভোট গণনা শুরু, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ইঙ্গিত o আজ রাজশাহী মুক্ত দিবস o সাত ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল শুরু o শিক্ষকরাই আসল প্রশ্নফাঁসকারী: শিক্ষামন্ত্রী o ২১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে রিহ্যাব মেলা

আজ সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

আপনি আছেন : প্রচ্ছদ  >  রাজনীতি  >  নানামুখী আলোচনা সিনহার ছুটি নিয়ে

নানামুখী আলোচনা সিনহার ছুটি নিয়ে

পাবলিশড : ২০১৭-১০-০৭ ১১:১৫:৫৫ এএম

।। অনলাইন ডেস্ক ।।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা এক মাসের ছুটি নেয়ার পাঁচ দিন পরও দেশজুড়ে এ নিয়ে নানামুখী আলোচনা চলছে। প্রধান বিচারপতি বিদেশে যেতে পারেন এমন খবরে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা গতকাল শুক্রবার তার বাসভবনের সামনে জড়ো হন। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তিনি বাসভবন থেকে বের হননি। তার বিদেশে যাওয়ার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের কোনো সূত্র নিশ্চিত করেনি। তবে গত বৃহস্পতিবার তিনি অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনে পাঁচ বছরের ভিসা চেয়ে আবেদন করেছেন বলে জানা গেছে। 

এ দিকে প্রধান বিচারপতির সাথে সাক্ষাৎ করতে সুপ্রিম কোর্ট বার নেতাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি বলেন, গতকাল বিকেলে প্রধান বিচারপতির বাসভবনে যাওয়ায় পথে মৎস্য ভবনের সামনে তাদের আটকে দেয় পুলিশ। 

মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, সুপ্রিম কোর্ট বারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গতকাল বিকেল ৫টায় সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীনসহ বারের নেতারা সুপ্রিম কোর্ট থেকে প্রধান বিচারপতির সাথে দেখা করতে তার বাসভবনের দিকে রওনা হলে মৎস্য ভবনের সামনে একটি সাদা মাইক্রোবাস নিয়ে সাদা পোশাকে পুলিশ এবং সেখানে অবস্থানরত পুলিশ সদস্যরা তাদের বাধা দেয়। মৎস্য ভবনের সামনে পুলিশ সদস্যরা জলকামান নিয়ে অবস্থান করে। তাদের বাধার কারণে সুপ্রিম কোর্ট বার নেতারা ফিরে যেতে বাধ্য হন। এ বিষয়ে আজ শনিবার বেলা ১১টায় সুপ্রিম কোর্ট বার সংবাদ সম্মেলন করবে বলে ব্যারিস্টার খোকন জানান। 

সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, তার এবং সম্পাদকের গাড়ি যখন মৎস্য ভবনের মোড়ের সিগন্যালে পৌঁছায়, তখন পোশাক পরা এবং সাদাপোশাকের কয়েকজন পুলিশ সদস্য এসে তার গাড়িটি থামান। গাড়িতে কয়েকজন কনিষ্ঠ আইনজীবী ছিলেন। তিনি ছিলেন সম্পাদকের গাড়িতে। পুলিশ সদস্যরা ওই কয়েকজন আইনজীবীকে গাড়ি থেকে নামিয়ে গাড়িতে তিনি আছেন কি না, তা তল্লাশি করেন। এরপর তাদেরকে গাড়ি ঘুরিয়ে চলে যেতে বলেন। পুলিশের এমন আচরণ দেখে অন্য গাড়িতে থাকা তারাও (সভাপতি নিজে) আর সামনে এগিয়ে যাননি। গাড়ি ঘুরিয়ে চলে আসেন।

এ দিকে গতকাল বেলা ১১টায় প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সাথে তার বাসভবনে গিয়ে সাাৎ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী। প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থান করে তিনি প্রধান বিচারপতির বাসভবন থেকে বের হয়ে যান। এ ছাড়া সুপ্রিম কোর্টের একাধিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও পরিবারের সদস্যদের কয়েকজন গতকাল প্রধান বিচারপতির সাথে সাাৎ করেছেন বলে জানা গেছে। গতকাল সকালে প্রধান বিচারপতির সাথে সাাৎ করতে তার বাসায় যান সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম। পরে আলাদা করে হাইকোর্ট বিভাগের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রারও সাাৎ করেন তার সাথে। সুপ্রিম কোর্টের আরো কয়েকজন কর্মকর্তা সেখানে যান বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুপ্রিম কোর্ট রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। 

প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়ায় ভিসার জন্য আবেদন করেছেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। অস্ট্রেলিয়ায় সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বড় মেয়ে থাকেন। আইনমন্ত্রী আনিসুল হকও গত বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সিনহাকে দেখতে তার সরকারি বাসভবনে যান। গত ২ অক্টোবর সুপ্রিম কোর্ট খোলার আগের দিন হঠাৎ করে অসুস্থতার কথা বলে এক মাসের ছুটিতে যান প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। এরপর গতকাল বিকেল সাড়ে ৫টায় বাসভবন থেকে বেরিয়ে লক্ষ্মীপূজা উপলে সস্ত্রীক ঢাকেশ্বরী মন্দিরে যান প্রধান বিচারপতি। 

অন্য দিকে গত ২ অক্টোবরের পর থেকে প্রধান বিচারপতির অবস্থা জানতে বৃহস্পতিবার কোর্ট বারের নেতৃত্বে সিনিয়র আইনজীবীরা আপিল বিভাগে যান। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আইনজীবীদের উদ্বেগের কথা শোনেন। তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত, তিনি (সুরেন্দ্র কুমার সিনহা) বাসায় আছেন। পরে সুপ্রিম কোর্ট বার নেতারা ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির সাথে তার খাস কামরায় সাক্ষাৎ করেন। ৩ অক্টোবর থেকে প্রধান বিচারপতি এক মাসের ছুটিতে যাওয়ায় রাষ্ট্রপতি সংবিধান অনুযায়ী প্রধান বিচারপতির কার্যভার দিয়েছেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে।