o পেপ্যাল জুম সেবা এখন বাংলাদেশে o ভারত থেকে এক লাখ টন সিদ্ধ চাল কিনবে সরকার o হেলথ কেয়ার, ফার্মাসিউটিক্যালস ও বায়োটেক ট্রেড ফেয়ার ২০১৭ o আদালতের পথে খালেদা জিয়া o এক ওভারেই সাকিবের জোড়া আঘাত

আজ বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭

আপনি আছেন : প্রচ্ছদ  >  পাহাড়ের জীবন  >  খাগড়াছড়ি ক্যান্ট. পাবলিক স্কুল ও কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্র চলছে এইচএসসি পরীক্ষা: পরীক্ষার্থীদের সন্তুষ্টি

খাগড়াছড়ি ক্যান্ট. পাবলিক স্কুল ও কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্র চলছে এইচএসসি পরীক্ষা: পরীক্ষার্থীদের সন্তুষ্টি

পাবলিশড : ১৮/০৫/২০১৬ ১০:৫৫:১৭ এএম আপডেট : ১৮/০৫/২০১৬ ১১:৩৮:৪৪ এএম

।। ayon ahmad ।।

স্টাফ রিপোর্টার :: খাগড়াছড়ি জেলা শহরে অবস্থিত অন্যতম তিন বিদ্যাপিঠ খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজ, খাগড়াছড়ি সরকারী মহিলা কলেজ ও খাগড়াছড়ি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ। বর্তমানে এই তিনটি কলেজই এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র। খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজের মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা খাগড়াছড়ি সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্র এবং বিজ্ঞান ও ব্যবসা শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীরা খাগড়াছড়ি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে, খাগড়াছড়ি সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরা খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজ কেন্দ্রে এবং ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা খাগড়াছড়ি সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিচ্ছে। প্রতিটি পরীক্ষা কেন্দ্রেই অত্যন্ত অনুকুল পরিবেশে পরীক্ষা চলছে।


     
উল্লেখ্য যে, ২০১৬ সালের এইচএসসি পরীক্ষা সেন্টার নির্ধারিত হওয়ার পর খাগড়াছড়ি কলেজের কতিপয় শিক্ষার্থী সেনা নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষা দিবেনা এই দাবীতে মিছিল, মানববন্ধন এবং জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছিল। এবং তারা সেনা নিয়ন্ত্রিত কলেজে পরীক্ষা না দেয়ার দাবীতে সহযোগিতা চেয়ে সাংবাদিকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। শিক্ষার্থীদের দাবীর পেক্ষিত বিবেচনা করেই খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের একটি প্রতিনিধি দল ১৭ মে ২০১৬ তারিখে খাগড়াছড়ি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ পরিদর্শনে যায়। পরিদর্শনকালে দেখা যায়- হল সুপার কলেজের অধ্যক্ষ নিজেই বিভিন্ন হল রুম পরিদর্শন করছেন। আমরা যখন কেন্দ্রে প্রবেশ করি তখন বিদ্যুৎ ছিল না কিন্তু দিব্বি ফ্যানগুলো ঘুরছিল। হল সুপার খাগড়াছড়ি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্ণেল মনিরুজ্জামান খান জানান খাগড়াছড়িতে প্রায় সময়ই বিদুৎ থাকে না। এখন প্রচন্ড গরম। এই গরমে পরীক্ষার্থীরা যাতে একটু শান্তিতে মাথা ঠান্ডা রেখে পরীক্ষা দিতে পারে তাই জেনারেটরের তেল পুড়িয়ে লাইট ও ফ্যান চালানোর ব্যবস্থা করেছি। তিনি আরো জানান, বোর্ড আমার এই কলেজকে পরীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে নির্বাচিত করেছে। এই কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে এসে একটি পরীক্ষার্থীও যাতে কোন ধরনের সমস্যায় না পরে তা নিশ্চিত করা আমার দায়িত্ব। তাই আমি বিদ্যুৎ না থাকলেও তাদের লাইট, ফ্যানসহ সবধরনের বৈধ সুযোগ নিশ্চিত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। তিনি আরো জানান, এই পরীক্ষা কেন্দ্রে খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজের বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের মোট ৫২৫ জন পরীক্ষার্থী পরিক্ষা দিচ্ছে।

এসময় কথা হয় কলেজের পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা শিক্ষক কামাল উদ্দিন ও সাহাব উদ্দিনের সাথে। তারা জানান, এই কেন্দ্রে নকলমুক্ত মনোরম পরিবেশে পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। প্রতিটি পরীক্ষার কক্ষ সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। কেন্দ্র সুপার এই কলেজের অধ্যক্ষ তার রুমে বসে এবং পরীক্ষার হলরুমে এসে সার্বক্ষণিক তদারকি করেন। তাই অত্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশে ছাত্র-ছত্রীরা তাদের পরীক্ষা দিতে পারছে।

প্রতিনিধি দলের মধ্যে ছিল খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সভাপতি জীতেন বড়ুয়া, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের মুহাম্মদ, একুশে টেলিভিশনের খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি চিংমেপ্রু মারমা, যমুনা টেলিভিশন ও  ডেইলিষ্টারের জেলা প্রতিনিধি কফিল মাহমুদ, পার্বত্যবাণী ২৪ এর বার্তা সম্পাদক আবুল কাশেম এবং দৈনিক মানবজমিনের খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি ও দৈনিক অরণ্যবার্তার স্টাফ রিপোর্টার আজহার হীরা।

হলরুম পরিদর্শন শেষে আমরা যাই অধ্যক্ষের কক্ষে। সেখানে গিয়ে দেখি অধ্যক্ষ তার কক্ষে বসেই সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে পরীক্ষার কক্ষগুলো নিয়ন্ত্রণ করছেন। বাংলাদেশের প্রতিটি পরীক্ষা কেন্দ্রই যদি এমনিভাবে সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা গেলে সারা দেশে নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হবে। পরীক্ষার হল নকলমুক্ত করা গেলে একঝাঁক মেধাবী শিক্ষার্থী নির্বাচন করা সম্ভব হবে। আর এইসব মেধাবী শিক্ষার্থীরাই দেশকে নিয়ে যেত পাবরে উন্নয়নের শীর্ষে।

পরীক্ষা শেষ হওয়া পর্যন্ত আমরা কয়েকজন অপেক্ষা করি কেন্দ্রের আশপাশে। পরীক্ষার পরে কথা হয় খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজের ব্যবসায় শিক্ষার পরীক্ষার্থী রিয়াদ চাকমা, সুপেশ চাকমা, নিকেটন চাকমা, নাজমুল হোসাইন, আরমান হোসাইন ও সুইচিং মারমার সাথে। তারা জানায় খাগড়াছড়ি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ সেন্টারে তারা পরীক্ষা দিচ্ছে। এখানকার পরীক্ষার পরিবেশ অত্যন্ত ভাল। তারা আরো জানায় প্রচন্ড গরম, খাগড়াছড়িতে ঠিকমত বিদ্যুৎ থাকেনা। কিন্তু এই পরীক্ষা কেন্দ্রে বিদ্যুৎ চলে গেলে সাথে সাথে জেনারেটর চালানো হয়। তাই তারা অত্যন্ত সাচ্ছন্দে পরীক্ষা দিচ্ছে।

 

এ বিভাগের সর্বশেষ