o জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে প্রস্তুত নয় আওয়ামী লীগ o রাজশাহীতে কোমলমতি শিশুদের মরণ বোঝা ভারী স্কুল ব্যাগ o আবারো সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম o জঙ্গিবাদের উদ্ভব হয় এমন প্রতিষ্ঠান কখনই 'বিশ্ববিদ্যালয়' হতে পারে না o ২৮-২৯ অক্টোবর পরিবহন শ্রমিকদের সারাদেশে ধর্মঘটের ডাক

আজ শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮ |

আপনি আছেন : প্রচ্ছদ  >  জাতীয়  >  ইমরানকে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ

ইমরানকে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ

পাবলিশড : ২০১৮-০৭-২১ ১১:৪১:৫০ এএম

।। অনলাইন ডেস্ক ।।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকারকে যুক্তরাষ্ট্র যেতে বাধা দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া শেষ করে এমিরেটাস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে উঠার পর সেখান থেকে তাকে নামিয়ে আনা হয়। পরে আর তাকে বিমানে উঠতে দেওয়া হয়নি।

এবিষয়ে ইমরান এইচ সরকার সাংবাদিকদের বলেন, আমার ফ্লাইট ছিল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় এমিরেটসে। ইমিগ্রেশনের সব কাজ শেষে প্লেনে উঠে বসি। কিন্তু ওই সময় আমাকে ডেকে নিয়ে আসা হয়। বলা হয় যে, পুলিশ আপনার সঙ্গে কথা বলবে।

তিনি বলেন, যখন পুলিশকে জানালাম যে আমার বিরুদ্ধে কোনোও মামলা নেই  বা কোনও অভিযোগও নেই। যে মামলাটি ছিল সেটাও স্থগিত। কিন্তু পুলিশ জানালো যে মামলা বা অভিযোগ থাকলে আপনি ইমিগ্রেশন পার হতে পারতেন না। আর ইমিগ্রেশন যেহেতু কমপ্লিট আপনি যেতে পারবেন। তবে আমাদের একটু কথা বলতে হবে। আমরা উপরের ক্লিয়ারেন্স ছাড়া আপনাকে যেতে দিতে পারবো না। কিন্তু পরে আর আমাকে বিমানে উঠতে দেয়া হয়নি। তাই রাত সাড়ে ১০টায় বিমানবন্দর থেকে বাসায় ফিরে আসি।

ইমরান এইচ সরকার জানান, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে ইয়থ ভিজিটর লিডারশিপ প্রোগ্রাম ও মানবাধিকার সংক্রান্ত আরেকটি অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্য তিনি আমেরিকা যাচ্ছিলেন।

তিনি বলেন, ‌তারা সুনির্দিষ্ট কোনও কারণ জানাতে পারেনি। পরবর্তীতে আমাকে পারিবারিক কারণ দেখিয়ে ইমিগ্রেশন বাতিল করার একটি আবেদনে স্বাক্ষর করতে বলা হয়। এতে রাজি না হলে পাসপোর্টে ডিপারচার অংশে কলম দিয়ে কেটে দেয়া হয়।

ইমরান বলেন, আমার সঙ্গে যা করা হলো তা একটি অগণতান্ত্রিক আচরণ, নিপীড়নমূলক। নজীরবিহীনভাবে আমাকে ইমিগ্রেশন পার হওয়ার পর আবার ফিরিয়ে আনা হয়। আমার বিরুদ্ধে কোনও মামলা বা ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাও নেই। ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা থাকলে ইমিগ্রেশনের সময় তারা আটকাতো। এরকম নজিরবিহীন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই।